মেজর সিনহা হত্যায় ওসি প্রদীপ-পরিদর্শক লিয়াকতসহ ৯ পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা

0 ৪৯

আলোকিত লংগদু ডেক্স:

কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কে পুলিশের গুলিতে সাবেক সেনা কর্মকর্তা মেজর সিনহা মো. রাশেদ নিহতের ঘটনায় ৯ পুলিশ সদস্যকে আসামী করে মামলা দায়ের হয়েছে। মামলায় আসামী করা হয়েছে বাহারছড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ পরিদর্শক লিয়াকত আলী ও টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাসকে। বুধবার (৫ আগস্ট) সকাল সাড়ে ১১টার দিকে নিহত মেজর রাশেদের বড় বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস টেকনাফ উপজেলা জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তামান্না ফারহার আদালতে মামলাটি দায়ের করেন।

মামলার অন্যান্য আসামীরা হলো এসআই নন্দ দুলাল রক্ষিত, এসআই টুটুল, এএসআই লিটন মিয়া, কনস্টেবল সাফানুর করিম, কামাল হোসেন, মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন, মোস্তফা। এ মামলার বাদী পক্ষে আইনজীবি হিসেবে ছিলেন কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের এডভোকেট মোহাম্মদ মোস্তফা।

বিভিন্ন সুত্রে জানা যায় ‘মামলাটি আদালত আমলে নিয়ে টেকনাফ থানাকে হত্যা মামলা হিসেবে রেকর্ড করার নির্দেশ দেন। পাশাপাশি মামলাটি রেকর্ড করা হয়েছে কিনা তা সাত দিনের মধ্যে আদালতকে অবগত করারও আদেশ দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি ওই মামলাটি র‌্যাব ১৫ এর কমান্ডার আজিম আহমেদকে তদন্ত করার নিদের্শও দেন আদালত।’

এর আগে সকাল সাড়ে ৯টার দিকে মামলার বাদী নিহত সাবেক সেনা কর্মকর্তা মেজর সিনহা মো. রাশেদের বড় বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস ঢাকা থেকে কক্সবাজার পৌঁছান। এদিকে মেজর (অব.) সিনহা মো. রাশেদের মৃত্যুর ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটি তদন্ত কাজ শুরু করেছে। সিনহা মৃত্যুর ঘটনায় তাঁর মা নাসিমা আক্তারকে মঙ্গলবার ফোন করে সমবেদনা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

জানা গেছে, সিনহার বাড়ি যশোরের বীর হেমায়েত সড়কে। তার বাবা মুক্তিযোদ্ধা এরশাদ খান অর্থ মন্ত্রণালয়ের উপ সচিব ছিলেন। ৫১ বিএমএ লং কোর্সের সঙ্গে সেনাবাহিনীর কমিশন লাভ করেছিলেন সিনহা। ২০১৮ সালে সৈয়দপুর সেনানিবাস থেকে তিনি স্বেচ্ছায় অবসর নেন। প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তায় নিয়োজিত স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্সেও (এসএসএফ) তিনি দায়িত্ব পালন করেছেন।

গত শুক্রবার (৩১ জুলাই) রাতে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের বাহারছড়া এলাকায় চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ।

আপনার ইমেইল প্রদর্শন করা হবে না।