লংগদুতে সুজয় চাকমা(সংস্কার) গুলিবিদ্ধের ঘটনায় জেএসএস (সন্ত লারমা)এর ১১ নেতা-কর্মীল বিরুদ্ধে মামলা

0 ৮৯

ফলোআপ নিউজ

।। সাকিব আলম মামুন ।।
রাঙামাটির লংগদুতে গত ১৫ জুলাই পুরাতন গোডাউন অফিস কাম কোয়াটারে জেএসএস (এমএন লারমা) সংস্কার দলের অফিসে যুব সমিতির (সংস্কার) সদস্য সুজয় চাকমা(২৫)কে গুলি করে হত্যার চেষ্টা করার দায়ে জেএসএস (সন্তু লারমা) এর ১১ নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে লংগদু থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।
বুধবার, গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত সুজয় চাকমা পিতা- রাঙ্গাধন চাকমা, সাং মধ্যছড়া, লংগদু ইউনিয়ন, লংগদু উপজেলা,রাঙামাটি জেলা বাদী হয়ে জেএসএস (সন্তু লারমা) এর লংগদু উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মনিশংকর চাকমাকে প্রধান আসামী করে দলের ১১ নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে এই মামলা করেন।
মামলার আসামীরা হলেন, জেএসএস (সন্তু লারমা) গ্রুপের ১. মনি শংকর চাকমা (৪৮), ২. যশো চাকমা (৪৩), ৩. মিলন চাকমা (৪০), ৪. রুপেন চাকমা (৩৫), ৫. কাজল বিকাশ চাকমা (২৫), ৬. বাবুল মনি চাকমা (২৮), ৭. সঞ্জিময় চাকমা- মেম্বার (৪৮), ৮. অর্জন চাকমা (২৬), ৯. রমেশ চাকমা (২৫), ১০. চিক্লোলো চাকমা এবং ১১. সল্লো কালা চাকমা।
মামলার বাদী সুজয় চাকমার এজাহারে আমি জেএসএস (এমএন লারমা) দলে অংগ-সংগঠন যুব সমিতির লংগদু উপজেলা শাখার একজন সক্রিয় সদস্য। অপরদিকে উপরে বর্ণিত বিবাদীগণ জেএসএস (সন্তু লারমা) গ্রুপের নেতাকর্মী অস্ত্রধারী সক্রিয় ক্যাডার ও সমর্থক। বিবাদীদের সহিত পূর্বে থেকেই বিভিন্ন মত বিরোধ ও শত্রুতা চলছে। উক্ত বিরোধকে কেন্দ্র করে বিবাদীগণ আমাকে ও আমার দলীয় সদস্যদের বিভিন্ন সময় বিভিন্ন কৌশলে হত্যার পরিকল্পনা করছে। গত ১৫ জুলাই ২০ ইং রাত আনুমানিক ১.৩০ ঘটিকার দিকে আমি আমার দলীয় অফিস কক্ষে ঘুমিয়ে ছিলাম, হঠাৎ গোলাগুলির শব্দ শুনে জেগে দেখি উপরোক্ত বিবাদীগণ পূর্ব পরিকল্পিতভাবে বে-আইনি জনতাবদ্ধে অত্র গোলাবারুদ সহ সজ্জিত হইয়া আমাকে এবং আমার দলীয় সদস্যদের প্রাণে হত্যার উদ্দ্যেশে ঘটনাস্থলের আশেপাশে পাহারা দিয়ে স্বয়ংক্রিয় অস্ত্রের মাধ্যমে এলোপাতাড়ি গুলি করছে।
গোলাগুলির শব্দ শুনে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে আসতে দেখে উপরোক্ত বিবাদীগণ আমার দলীয় সদস্যদের প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে ঘটনাস্থল ত্যাহ করে। রক্তাক্ত অবস্থায় আমার আত্মীয় স্বজন ও দলীয় লোকজন আমাকে লংগদু সদর হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করেন। আমার অবস্থা আশংঙ্খা জনক হওয়ায় তাৎক্ষণিকভাবে খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেন। আমি কিছুটা শারীরিক ভাবে সুস্থ হওয়ায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ছাড়পত্র দিলে, আমার আত্মীয় স্বজনসহ দলীয় লোকজনের সাথে আলোচনা করে বিবাদীদের নাম ঠিকানা সংগ্রহ করে থানায় এসে এজাহার দায়ের করি বলে উল্লেখ করেন।
লংগদু থানার অফিস ইনচার্জ সৈয়দ মোহাম্মদ নুর জানায়, জেএসএস (সংস্কার)এর যুবসমিতির সদস্য সুজয় চাকমা গুলিবিদ্ধ হওয়ার ঘটনায় সে বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছে। এটি একটি নিয়মিত মামলা। বিবাদীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
জেএসএস (সন্তু লারমা) লংগদু উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মনিশংকর চাকমা (এই মামলার প্রধান আসামী) মুঠোফোনে জানান, এটি একটি সড়যন্ত্রমূলক ও রাজনৈতিক উদ্দেশ্যজনিত মামলা। তারা এঘটনার সাথে কোনভাবে জড়িত নয় বলে জাানন।

আপনার ইমেইল প্রদর্শন করা হবে না।