রিজার্ভ ফরেষ্ট এর জমিতে ঘর নির্মাণ -বন বিভাগ কর্তৃক উচ্ছেদ

alokitolangadu@gmail.com

0 ৪৪

 

দৈনিক আলোকিত লংগদু ডেক্সঃ

রাঙ্গামাটি লংগদু উপজেলার ৩ নং গুলশাখালী ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ড মসজিদ বাড়ী এলাকায় বিজিব‘র পরিত্যক্ত ক্যাম্পের জায়গা দখলদার থেকে উদ্ধার করার লক্ষে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সুত্রে জানায়, বিজিবি ক্যাম্পের পরিত্যক্ত জায়গাটিতে জনৈক মোঃ মাসুদ মিয়া, পিতা-মুর্শিদ মিয়া, গ্রাম- সোনারগাঁও ছোট মাহিল্যা গত ০১ ডিসেম্বর ২০২৩ তারিখে রাতের আধাঁরে বাড়ি নির্মাণ করে বিজিবি জোন এবং সংশ্লিষ্ট কোনও কর্তৃপক্ষের অনুমতি না নিয়ে বসবাস করে আসছে।

উল্লেখ্য যে, মোঃ মাসুদ কর্তৃক এ এলাকায় ঘর স্থাপন করার পর হতেই স্থানীয় পাহাড়ীরা তার প্রতি অসন্তোষ প্রকাশ করে আসছে। মাসুদ এর গরু-ছাগল দ্বারা স্থানীয়দের ফসলী জমি নষ্ট করাকে কেন্দ্র করে প্রায়ঃশই মাসুদের সাথে এলাকাবাসীর ঝগড়া-বিবাদ লেগে থাকত। উক্ত বিষয়ে গত ০১ ডিসেম্বর ২০২৩ তারিখ স্থানীয়রা রাজনগর জোনে মাসুদ কর্তৃক বিভিন্ন ভাবে নির্যাতনের বিষয়ে মৌখিকভাবে অভিযোগ দায়ের করলে ০২ ডিসেম্বর ২০২৩ তারিখ অত্র জোনের জোন কমান্ডার ঘটনাস্থলে গিয়ে মাসুদকে ঘর বাড়ী সরিয়ে নিতে বলেন। কিন্তু মাসুদ ঘর না সরিয়ে নিলে গত ১০ ডিসেম্বর ২০২৩ তারিখে রাজনগর জোন কমান্ডার স্থানীয় চেয়ারম্যান, মেম্বার এবং হেডম্যানকে বিষয়টি অবগত করেন।

এ প্রেক্ষিতে জনপ্রতিনিধিরা বারংবার মাসুদকে ঐ স্থান হতে ঘর ভেংগে অন্যত্র চলে যাওয়ার জন্য বললেও মাসুদ সেখানেই অবস্থান করছিল। স্থানীয়দের বরাতে জানা যায়, গত ১৫ জানুয়ারি ২০২৪ তারিখ আনুমানিক রাত ৯.০০ টার সময় মাসুদের বাড়ি দিক থেকে এলাকায় প্রভাব বিস্তার ও স্থানীয়দের ভয়ভীতির উদ্দেশ্যে আনুমানিক ০৫-০৬ রাউন্ড গুলি বর্ষণ করা হয়েছে। এতে করে ঐ এলাকায় বসবাসরত স্থানীয়রা আতঙ্কগ্রস্থ হয়ে পড়ে।

উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে এলাকায় আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখার নিমিত্তে রাজনগর বিজিবি জোন হতে স্থানীয় বন বিভাগকে অবৈধ বাড়িটি উচ্ছেদ করতে অনুরোধ জানানো হয়। এ প্রেক্ষিতে পাবলাখালী বন বিট কর্মকর্তা মো: সজীব হোসেন এর নেতৃত্বে বন বিভাগের একটি দল রিজার্ভ ফরেষ্ট এলাকায় স্থাপিত জনৈক মাসুদের টিনশেড বাড়িটি উচ্ছেদ করে। এ সময় দখলদার মাসুদ বহু নাটকীয়তা ও তালবাহানা করে সময় ক্ষেপন করলেও বন উজারের বিরুদ্ধে প্রশাসনের জিরো টলারেন্সের কারণে বর্ণিত মাসুদ দখলকৃত টিলাটি ছেড়ে চলে যেতে বাধ্য হয়।

উচ্ছেদকালীন সময় ঘটনাস্থলে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম, ইউপি মেম্বার, হেডম্যান, কারবারী উপস্থিত ছিলেন। উচ্ছেদের সময় রাজনগর জোনের একটি বিশেষ টহল দল বিজিবির সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ হাফিজুর রহমান, বিজিবিএমএস এর নেতৃত্বে ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিল।

পাবলাখালী বনবিভাগের বিট কর্মকর্তা সজীব মজুমদার বলেন, পার্বত্য অঞ্চলে রিজার্ভ ফরেস্ট এখন হুমকির মুখে। তাই বনবিভাগের রিজার্ভ ধবংস করে কেউ বসতি বা কোনরকম স্থাপনা তৈরী করতে পারবেনা। আইন অমান্য কারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ প্রসংগে রাজনগর জোন কমান্ডার জানান, পার্বত্য এলাকায় সন্ত্রাস ও নাশকতা প্রতিরোধে এবং পাহাড়ের জীব-বৈচিত্র রক্ষায় এরূপ অভিযান চলমান থাকবে।

 

আপনার ইমেইল প্রদর্শন করা হবে না।