পূজা মন্ডপ পরিদর্শনে লংগদু প্রশাসন

৭২

সাকিব আলম মামুন,

রাঙামাটির লংগদুতে উলুধ্বনি, শঙ্খ, ঘণ্টাসহ ঢাক- ঢোলের বাজনা ও ষষ্ঠী পূজার মধ্য দিয়ে শুরু হলো বাঙালি সনাতন ধর্মালম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব দুর্গা পূজা।

 

শনিবার সকাল হতে লংগদুর বিভিন্ন মন্দিরে দেবীর ষষ্ঠাদি কল্পারম্ভের মধ্য দিয়ে শুরু হয় ষষ্ঠীর দিনের পূজা। উপজেলার সব কয়টি পূজা মন্ডপে শুরু হয়েছে ষষ্ঠী পূজার আয়োজন।

 

উপজেলার ৩টি পূজা মন্ডপে এ বছর দূর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে। এসব পূজা মণ্ডপের মধ্যে রয়েছে দুটি ঘট পূজা। প্রশাসনের পক্ষ হতে নেওয়া হয়েছে পূজার জন্য জোরদার নিরাপত্তা ব্যবস্থা। পূজা মন্ডপে আনা হয়েছে সিসি টিভির আওতায়।

 

পঞ্জিকা অনুযায়ী শনিবার মহা ষষ্ঠীতে সকালে দুর্গা দেবীর ষষ্ঠাদি কল্পারম্ভ ও ষষ্ঠীবিহিত পূজা, সন্ধ্যায় দেবীর বোধন। রোববার মহা সপ্তমীবিহিত পূজা, সোমবার মহা অষ্টমীবিহিত পূজা, মঙ্গলবার মহা নবমীবিহিত পূজা, বুধবার দশমীবিহিত পূজা সমাপনী ও প্রতিমা বিসর্জন।

 

এদিকে উপজেলার পূজা মণ্ডপ পরিদর্শনে আসেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার জনি রায় এবং লংগদু থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আরিফুল আমিন। পরিদর্শন শেষে জানান, লংগদু, জালিয়াপাড়া ও মাইনী পূজা মণ্ডপ গুলো পরিদর্শন করে দেখছি। চমৎকার উৎসব মুখোর পরিবেশে পূজা উদযাপন শুরু হয়েছে। পূজা মণ্ডপে থাকা লোকজনদের সাথে কথা বলেছি খুব সুন্দর এবং পূর্বের বছর গুলোর চাইতে এবছর পূজায় পরিবেশ খুব সুন্দর রয়েছে। পূজার নিরাপত্তায় পুলিশ বাহিনী কাজ করছে, পাশাপাশি আনসাররাও কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছে। সকলের সার্বিক সহযোগিতায় শান্তিপূর্ণ এবং সুন্দর একটি পূজা শেষ হবে বলে আশা রাখি।

 

এসময় পূজা মণ্ডপ পরিদর্শনে অংশগ্রহণ করেন একাডেমি সুপারভাইজার শওকত আকবর, মাইনীমূখ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কামাল হোসেন কমল, পূজা কমিটির সভাপতি/সম্পাদকবৃন্দ ও অন্যান্য ব্যক্তিবর্গ।

মন্তব্য বন্ধ আছে তবে ট্র্যাকব্যাক ও পিংব্যাক চালু রয়েছে।