সোনাই দশবল বৌদ্ধ বিহারে ২৭তম কঠিন চীবর দানোৎসব

১০২

সোনাই দশবল বৌদ্ধ বিহারে ২৭তম কঠিন চীবর দানোৎসব

।। আলোকিত লংগদু ডেক্স ।।
দানোত্তম কঠিন চীবর দানোৎসব নানা ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান আয়োজনের মধ্যদিয়ে রাঙামাটির লংগদু উপজেলার সোনাই দশবল বৌদ্ধ বিহারে উদযাপিত হয়েছে ২৭ তম দানোত্তম কঠিন চীবর দানোৎসব-২১।

শনিবার সন্ধ্যায় ধর্মীয় কর্মসূচী শুরু হয়ে রোববার সন্ধ্যায় শেষ হয়। এসব কর্মসূচীর মধ্যে বুদ্ধপূজাদান, বুদ্ধমূর্তিদান, সংঘদান, অষ্টপরিস্কারদান, কঠিন চীবরদান, পঞ্চশীল প্রার্থনা, হাজার বাতিদান, ধর্মীয় দেশনা, কল্পতরু প্রদক্ষীণ ও উৎসর্গ সহ নানাবিধ দান উলে­খযোগ্য।

দানোৎসবকে ঘিরে শত শত পূর্ণার্থীদের আগমন ঘটে গোটা বিহার এলাকায়। সকল প্রাণির হিতসুখ ও মঙ্গল কামনায় এবং মহামারি করোনা ভাইরাস থেকে পরিত্রানের জন্য বিশেষ প্রার্থণা করা হয়। এসময় মহাসাধক সাধনানন্দ মহাস্থবীর বনভান্তেকে স্মরণ করা হয়।

নির্পণ চাকমার অনুষ্ঠান পরিচালনায় বিশেষ প্রার্থণা পাঠ করেন, বরাদম কলেজের অধ্যক্ষ সুগত অলংকার ভান্তে। স্বাগত বক্তব্য রাখেন, ২৪নং মাইনীমুখ মৌজার হেডম্যান মানিক কুমার চাকমা। অথিতি হিসেবে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন, লংগদু উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল বারেক সরকার ও রকি চাকমা।

বনভান্তের অমীয় বাণি দিয়ে পূর্ণার্থীদের ধর্মীয় দেশনা দেন সোনই দশবল বৌদ্ধ বিহার অধ্যক্ষ প্রজ্ঞা জৌতি ভান্তে, এসময় অন্যান্য ভিক্ষুগন উপস্থিত ছিলেন।
বিশাখার প্রবর্তিত নিয়মে কঠিন চীবর দানকে অনুসরণ করে এবং গৌতম বুদ্ধের অমীয় কথাগুলো অক্ষরে অক্ষরে মেনে চললে পরনির্বাণ লাভ করা যায়। শেষে সন্ধ্যায় হাজার বাতি প্রজ্জ্বলন ও ফানুষ বাতি উড়ানো হয়।
#

মন্তব্য বন্ধ আছে তবে ট্র্যাকব্যাক ও পিংব্যাক চালু রয়েছে।