সিলেট বানবাসিদের পাশে পার্বত্য চট্টগ্রামের বায়তুশ শরফ কমপ্লেক্সের প্রধানগণ

৫৭
পার্বত্যচট্টগ্রাম বায়তুশ শরফ সমূহের এক প্রতিনিধিদল, আলহাজ্ব হযরত মাওলানা হাফেজ মোঃ ফোরকান আহমদ সাহেব মঃজিঃআঃ সুপার গাঁথাছড়া বায়তুশ শরফ কমপ্লেক্স। আলহাজ্ব হযরত মাওলানা মোঃ আবু ওসমান মঃজিঃআঃ সুপার খাগড়াছড়ি বায়তুশ শরফ কমপ্লেক্স, আলহাজ্ব মাওলানা সাইদুল হক সহকারী শিক্ষক রাঙ্গামাটি বায়তুশ শরফ কমপ্লেক্স ও রাঙ্গামাটি বায়তুশ শরফ কমপ্লেক্সের জামে মসজিদের খতীব ও ইমাম মাওলানা আবুল কাশেম সাহেব সহ পার্বত্যচট্টগ্রাম বায়তুশ শরফ কমপ্লেক্সের প্রাক্তন ছাত্র সংসদের সদস্যবৃন্দ সিলেটে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ ব্যক্তিদের সহায়তার জন্য সুদূর পাহাড়ী অঞ্চল থেকে সিলেটে পৌঁছান। ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের বসতিস্থল নির্মানের জন্য টেউ টিন ও প্রয়োজনীয় জিনিস পত্র ক্ষয় করে বাড়ী বাড়ী পৌঁছে দেন।
সেবার জন্য সুদূর পাহাড়ী অঞ্চল থেকে সেখানে পৌছে মুহতারাম ফোরকান আহমদ সাহেব হুজুর বলেন এটি আমাদের বায়তুশ শরফ পীর মুর্শীদের শিক্ষা। আমরা পার্বত্য চট্টগ্রামের বায়তুশ শরফের মুহিব্বিন ও ছাত্র শিক্ষকদের দেয়া বিভিন্ন অনুদান অসহায় বানবাসী মানুষের সেবায় পৌছে দিতে পরেছি তাই আল্লাহর দরবারে শুকরিয়া আদায় করছি। বায়তুশ শরফের আদর্শকে লালন করে সূদুর পাহাড়ী আঞ্চল থেকে অসহায় মানুষদের সেবা ও সহযোগিতা করতে ভুলে যাইনি। এটি একটি বড় শিক্ষা সেচ্ছাসেবী ও মানবিকতার ক্ষেত্রে। আল্লাহ যেন সকলের দানকে কবুল করেন। সবাই সবার জন্য দোয়া করবেন। সাথে দেশের সকল সেচ্ছাসেবী ও বৃত্তবান লোকদের এগিয়ে এসে অসহায় মানুষগুলোর সেবাদিতে আহবান জানান তিনি।
মুহতারাম মাওলনা আবু ওসমান সাহেব হুজুর বলেন, বায়তুশ শরফ দরবার একটি আধ্যাতিক দরবার এটি গতানুগতিক অন্য দরবারের ন্যায় নয়, বায়তুশ শরফ দরবার মানব কল্যাণে কাজ করে ইতিমধ্যে বিশ্বে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। আমাদের পীর মুর্শিদ সর্বদা আমাদেরকে তাই শিক্ষা দিয়েছেন। বর্তমান আমাদের সকলের মুরব্বি রাহবারে বায়তুশ শরফ মঃজিঃআঃ দান অনুদান দেয়ার প্রতিযোগিতা করেন কার থেকে কে বেশি দান করতে পারেন। আমরা তাঁহার অনুসারী, আমরা চেষ্টা করি বেশি দান অনুদানের মাধ্যমে আল্লাহর নৈকট্য লাভ করতে। আল্লাহ আমাদের বেশি বেশি দান অনুদান দেয়ার তাওফিক দান করুন আমিন।
মাওলানা সাইদুল হক বলেন, বানবাসীরা বন্যায় সব কিছু হারিয়ে নিঃস্ব প্রায় ভিটে মাটি ছাড়া তাদের আর কিছুই অবশিষ্ট নেই। সামান্য অনুদান তাদের মাথা খুছার ঠাই হবে, এটি নিসন্দেহে অনেক বড় সাওয়াবের কাজ এতে সম্পৃক্ততা হতে পেরে নিজেকেই অনেক বড় সৌভাগ্যবান মনে হচ্ছে। আর আমাদের তো শিক্ষা এটাই যে অসহায় মানুষের সেবা করা। বায়তুশ শরফ দরবার সর্বদা অসহায় ও নিরীহ মানুষের সেবা করে থাকে। আমাদের পীর মুর্শিদ হুজুর কেবলা রাহঃ কে দেখেছি এক মাহান দানবীর হিসেবে আমরা তাহার থেকেই শিক্ষা নিয়ে চেষ্টা করি দান অনুদানের মাধ্যমে আল্লাহর সন্তুষ্টি হাছিল করতে। আল্লাহ আমাদের আপনি পীর মুর্শিদের পথ অনুসরণ করে মানব সেবা করার তাওফিক দাও। আমীন

মন্তব্য বন্ধ আছে তবে ট্র্যাকব্যাক ও পিংব্যাক চালু রয়েছে।