লংগদুতে যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপন

৬২

লংগদুতে যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপন

।। ও এফ মুছা ।।
রাঙামাটির লংগদুতে যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপন করা হয়েছে । উপজেলার সরকারী কর্মকর্তা, রাজনৈতিক দল, সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ সর্বস্থরের মানুষ এসময় বীর সন্তানদের শ্রদ্ধার সাথে স্বরণ করেছে।
শনিবার (২৬ মার্চ) দিবসটি উপলক্ষ্যে উপজেলা প্রশাসন, থানা পুলিশ প্রশাসন, মুক্তিযোদ্ধা সংসদসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সংগঠনের পক্ষ থেকে নেওয়া হয় পৃথক পৃথক কর্মসূচী। সূর্যোদয়ের সাথে সাথে অস্থায়ী স্মৃতিসৌধ, বঙ্গবন্ধু’র ম্যুরালে ফুল দিয়ে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল বারেক সরকার, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাইনুল আবেদীন,বাঘাইছড়ি সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার আব্দুল আওয়াল, লংগদু থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আরিফুল আমিন সহ বিভিন্ন সরকারী বিভাগ, রাজনৈতিক সংগঠন, সাংস্কৃতিক সংগঠন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ সর্বস্থরের মানুষের পক্ষ থেকে মুক্তিযুদ্ধের শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।
সকাল ৮টায় শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়ামে বেলুন ও পায়রা উড়িয়ে দিবসের শুভ উদ্বোধন করেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল বারেক সরকার, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাইনুল আবেদীন। পরে লংগদু থানা পুলিশ, আনসার ভিডিপি, স্কাউটস এবং বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সদস্যরা কুঁচকাওয়াজ ও শরীরচর্চা প্রদর্শণীতে অংশ নেন। এরপরে, সকাল ১১টায় উপজেলা পাবলিক লাইব্রেরী মিলনায়তনে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে বক্তারা স্বাধীনতার চেতনা, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় সোনার বাংলাদেশ গড়ার অঙ্গীকার করেন। বক্তারা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর দেখানো পথ অনুযায়ী শান্তি ও সমৃদ্ধশালী বাংলাদেশ গড়তে তার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গঠনে একসাথে কাজ করার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানান। আলোচনা সভায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাইনুল আবেদীন এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল বারেক সরকার। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন লংগদু থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আরিফুল আমিন, প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা শুভাশিষ কর্মকার, লংগদু প্রেস ক্লাবের সভাপতি মোঃ এখলাস মিয়া খান, বীর মুক্তিযোদ্ধা তৈয়ব আলী। এরপরে বীর মুক্তযোদ্ধাদের প্রশাসনের পক্ষ থেকে উত্তরীয় পরিয়ে ক্রেস্ট ও নগদ অর্থ উপহার দিয়ে সংবর্ধনা দেয়া হয়। বিকালে শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়ামে এক প্রীতি ফুটবল ম্যাচ ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতি অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

মন্তব্য বন্ধ আছে তবে ট্র্যাকব্যাক ও পিংব্যাক চালু রয়েছে।